About Us

আমাদের কথা

কুড়ি বছর অনেকটা পথ ।। এখনো আনন্দধারা বয়ে চলেছে ।।মনে পড়ছে সুকুমার রায়ের সেই খেয়াল রসের উক্তি ” উনিশটি বার ম্যাট্রিকে সে ঘায়েল হয়ে থামলো শেষে ” ;ঘায়েল আমরা অবশ্যই – – – – আপনাদের ভালোবাসায়, আশীর্বাদে, পৃষ্ঠপোষকতায় এবং অকুন্ঠ সমর্থনে ।।বুঝে, না বুঝে, কি করে হবে, কেন হবে না এই সব যুক্তি তর্কে না গিয়ে সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি এক দুর্নিবার ভালোলাগার আকর্ষণে সমস্ত প্রতিকূলতা অগ্রাহ্য করে ঝাঁপিয়ে পড়েছে কিছু মানুষ ।।বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠান-কেন্দ্রিক প্রয়োজনে এবং মননশীল দায়বদ্ধতায় সমমনা সাহিত্যপ্রেমী, সংস্কৃতিবান সুধীজন নিঃস্বার্থ ভাবে এগিয়ে এসেছেন ।। তাঁদের সক্রিয় অংশগ্রহনে এবং সামগ্রিক ব্যবস্থাপনায় অস্ট্রেলিয়ার আগ্রহী দৰ্শকবৃন্দ পেয়েছেন চমকপ্রদ নানা উপস্থাপনা ।।ভারতবর্ষ, বাংলাদেশ থেকে আগত, আমন্ত্রিত গুণীজন এবং প্রবাদপ্রতিম সাহিত্যিকবৃন্দ মুগ্ধ বিস্ময়ে উপভোগ করেছেন স্থানীয় কলাকুশলীদের সৃষ্টিশীলতা, সাহিত্যবোধ ।। একাত্ম হয়েছেন সুকুমার চিন্তার আদান প্রদানে ।। বীজ থেকে অংকুরিত হয়েছে আনন্দধারা ।।আমাদের পরম সৌভাগ্য যে আনন্দধারা রিডার্স ফোরাম এর প্রয়াসে আমরা সাহিত্য-সংস্কৃতি জগতের উজ্জ্বল নক্ষত্রদের সান্নিধ্য পেয়েছি এই প্রবাসে – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় (২০০১), সুচিত্রা ভট্টাচার্য্য (২০০৬), শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় (২০০৯), হর্ষ দত্ত (২০১০), অপূর্ব দত্ত (২০১১), সমরেশ মজুমদার (২০১২), আব্দুল্লাহ আবু সয়ীদ (২০১৪), নবকুমার বসু (২০১৬) ।।অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী স্থানীয় সঙ্গীতশিল্পী এবং অঙ্কনচিত্র শিল্পীদের উৎসাহিত করার প্রচেষ্টায় আনন্দধারা রিডার্স ফোরাম তাদের সীমিত সামর্থ্যের মধ্যে আয়োজন করেছে একাধিক সংগীত সন্ধ্যা এবং প্রদর্শনী ।। আমাদের ফেলে আসা কিছু সুন্দর স্মৃতি – এ শুধু গানের দিন (১৯৯৭), সলিল চৌধুরী সন্ধ্যা (১৯৯৮), অঙ্কনচিত্র প্রদর্শনী এবং সংগীতসন্ধ্যা (১৯৯৮), এক সন্ধ্যায় এক সালেকিন (১৯৯৯), শচীন দেব বর্মন সন্ধ্যা (২০০০), Unforgettable Melodies (২০১০), রাহুল দেব বর্মন নাইট (২০১১) ||এ ছাড়া বিগত দু দশক ধরে কিছু সাহিত্যপ্রেমী এবং সাহিত্যসেবী মানুষ নীরবে এবং নিয়মিত ভাবে কাজ করে অস্ট্রেলিয়ার সব প্রান্তের উৎসাহী পাঠক এর কাছে সময়মতো পত্রিকা, বই পৌঁছে দিচ্ছে আন্তরিকতা, ধৈর্য ও নিষ্ঠার সঙ্গে ।। আক্ষরিক অর্থে আনন্দধারা কুড়ি বছরেও ব্যবসায়িক সফলতা বা সাংগঠনিক শক্তি অর্জন করেনি ।।আজ সময়ের সাথে তাল মেলাতে এবং ব্যস্ত দৈনন্দিন জীবনযাত্রার মাঝে আনন্দধারাকে প্রবাহমান রাখতে আশু প্রয়োজন দুটি জিনিষের – পরিবর্তন এবং সংস্কার ।।আমরা সাধ্যমতো বিশ্লেষণ এবং আপনাদের মতামত এর উপর ভিত্তি করে নতুন পথে নতুন ভাবে আনন্দধারা’কে সাজাবার এবং সময়োপযোগী করবার পরিকল্পনা নিয়েছি ।।আনন্দধারা’র নবরূপায়ণ শুরু হয়ে গেছে ।। আমাদের প্রথম পদক্ষেপ অনলাইন ক্যাটালগ এবং অনলাইন একাউন্টিং এন্ড পেমেন্ট সিস্টেম ।।
আপনাদের আশীর্বাদ এবং সহযোগিতার প্রেরণা আনন্দধারা’কে এগিয়ে নিয়ে যাবে উজ্জ্বলতর আগামী দিনে ।।মননশীলতার কোনো বিকল্প হয়না ।। সাহিত্যচর্চ্চা, সংগীতচর্চ্চা এর এক একটি সোপান ।।আপনারা সুস্থ থাকুন, আনন্দে থাকুন ।।আনন্দধারা’র পক্ষ থেকে সকলকে জানাই আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও শুভেচ্ছা ।।

Leave a Reply

দখিনা তে লেখা পাঠাবার শেষ তারিখ ২৫ জুনClick Here
+ +